Voice of SYLHET | logo

৯ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ২৩শে জুন, ২০২১ ইং

প্রস্তাবিত বাজেটে শ্রমজীবীদের ভাগ্যের পরিবর্তন হবে না : শামসুল ইসলাম

প্রকাশিত : জুন ০৫, ২০২১, ১০:৩৬

প্রস্তাবিত বাজেটে শ্রমজীবীদের ভাগ্যের পরিবর্তন হবে না : শামসুল ইসলাম

জাতীয় সংসদে অর্থমন্ত্রী ২০২১-২২ অর্থ বছরের জন্য প্রস্তাবিত বাজেট প্রত্যাখান করে বাংলাদেশ শ্রমিক কল্যাণ ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় সভাপতি ও সাবেক এমপি আ ন ম শামসুল ইসলাম বলেছেন, এই বাজেট অতীতের মতো গতানুগতিক। প্রস্তাবিত বাজেটে হতদারিদ্র্য ও নিম্মবিত্ত শ্রমজীবী মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন ঘটাবে না। দেশের এক তৃতীয়াংশ মানুষ ক্ষুদ্র শিল্পের সাথে জড়িত। এই সকল মানুষের জন্য বাজেটে নতুন কিছু রাখা হয়নি। অথচ করোনার এই মহামারীর সময় তাদের পাশে দাঁড়ানো জন্য শ্রমিক বান্ধব বাজেট পেশ করা উচিত ছিল।

শুক্রবার গণমাধ্যমে পাঠানো বাজেট প্রতিক্রিয়ায় শামসুল ইসলাম আরো বলেন, বাংলাদেশ ইতিহাসের এটি সবচেয়ে বড় বাজেট। কিন্তু এই বাজেট বাস্তবায়ন সম্ভব নয় বলে দেশের বিজ্ঞ অর্থনীতিবিদরা মতামত দিয়েছেন। মূলত স্বজনপ্রীতি ও স্বজন তোষণের জন্য এই বাজেট পেশ করা হয়েছে। যে সকল হতদারিদ্র্য, দিন আনে দিন খায় ও অনানুষ্ঠানিক খাতে যারা কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করে সেই শ্রমিকরা বরাবরই উপেক্ষিত থেকে যাচ্ছে। ফলশ্রুতিতে দেশের একটি বিশাল জনগোষ্ঠী বাজেট থেকে কোনো প্রকার লাভবান হচ্ছে না। আমরা ভেবেছি সরকার বর্তমান পরিস্থিতি আমলে নিয়ে এই হতদারিদ্র্য জনগোষ্ঠীর জন্য বিশেষ প্রণোদনার ব্যবস্থা করবে। কিন্তু সরকার আবারো আমাদের একরাশ হতাশা প্রস্তাবিত বাজেটে উপহার দিয়েছে।

বিবৃতিতে আরো বলা হয়, দেশের এক শ্রেণীর মানুষের স্বার্থকে প্রাধান্য দিয়ে অসহায় দারিদ্র্য মানুষদের দিনের পর দিন ঠকিয়ে আসা হচ্ছে। এভাবে একটি দেশের অর্থনীতি চলতে পারে না। এ মুহূর্তে দেশের নিম্নআয়ের মানুষকে বাঁচাতে তাদের জীবন-জীবিকা নিশ্চিত করতে হবে। কর্মহীন মানুষের জন্য কর্মসংস্থান করার পাশাপাশি কর্মহীনদের জন্য প্রণোদনা দিয়ে কর্মের সৃষ্টি করার জন্য বিশেষ বরাদ্দ রাখা উচিত ছিল। কিন্তু এক শ্রেণীর মানুষের ব্যাংক ব্যালেন্স বাড়াতে গিয়ে অর্থমন্ত্রী যেন দেশের হতদারিদ্র্য মানুষদের কথা ভুলে গিয়েছেন।

শামসুল ইসলাম বলেন, সরকার একের পর এক মেগা প্রকল্পে কোটি কোটি টাকা বরাদ্দ দিয়ে যাচ্ছে। দারিদ্র্য জনগণকে উপোস রেখে উন্নয়নের নামে এই সকল প্রকল্পে দুর্নীতির উৎসব চলছে। সরকার দারিদ্র্য জনগোষ্ঠীর জন্য যা বরাদ্দ দিয়েছে তা ইতোমধ্যে হাসির খোরাকে পরিণত হয়েছে। প্রায় ছয় কোটি দারিদ্র্য মানুষের জন্য প্রস্তাবিত বরাদ্দ মাথাপিছু ১০০-২০০ টাকাও পড়বে না।

করোনাভাইরাসে দেশের স্বাস্থ্যখাত বিপর্যস্ত উল্লেখ করে শ্রমিক কল্যাণের সভাপতি বলেন, দেশে সরকারি হাসপাতালগুলোতে মূলত দারিদ্র্য জনগোষ্ঠীরাই চিকিৎসাসেবা নিয়ে থাকে। সেই স্বাস্থ্যখাতেও সবচেয়ে কম বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। এখানে জিডিপির অন্তত ৩ শতাংশের ওপর বরাদ্দ রাখা দরকার ছিল।

সাবেক এমপি শামসুল ইসলাম বলেন, দারিদ্র্য শ্রমজীবী মানুষের সংখ্যা ক্রমাগত বাড়ছে। কিন্তু এই ধারারোধের জন্য উদ্যোগ প্রস্তাবিত বাজেটে প্রতিফলিত হয়নি। দেশের পোশাকসহ সকল শ্রমিকদের জন্য রেশন, বিনামূল্যে চিকিৎসা, স্বল্পমূল্যে আবাসনের ব্যবস্থা রাখা এই মুহূর্তের জন্য জরুরি হয়ে দাঁড়িয়েছে। কিন্তু সরকার এত বড় বাজেট দিলেও দেশের অর্থনীতির চাকা যারা সচল রাখছে তাদের জীবনমান উন্নয়নের কোনো চেষ্টা করছে না। যা সত্যিই দুঃখজনক।

তিনি বলেন, সরকার রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল, চিনিকল ও বস্ত্রকলগুলো ধারাবাহিকভাবে বন্ধ করে দিয়ে অসংখ্য শ্রমিককে কর্মহীন করে রাখছে। এই সকল শ্রমিকদের শত শত কোটি টাকা বছরের পর বছর বকেয়া রয়েছে। যা এই বাজেটেও পরিশোধের কোনো উদ্যোগ নেয়া হয়নি। ফলে যেকোনো সময় শ্রমিকরা ধৈর্যহারা হয়ে আবারো বকেয়াা আদায়ের জন্য রাজপথে নেমে আসতে পারে।

বর্তমান সরকার দেশ পরিচালনায় করতে গিয়ে ভবিষ্যৎ প্রজন্মের ওপর ঋণের বোঝা চাপিয়ে দিচ্ছে বলে মনে করে শ্রমিক কল্যাণ ফেডারেশন। সংগঠনটির সভাপতি বলেন, মোট বাজেটের এক তৃতীয়াংশের বেশি ঘাটতি থেকে যাচ্ছে। যা বৈদেশিক কিংবা আভ্যন্তরীণ সোর্স থেকে ঋণ নিয়ে পূরণ করতে হবে। জনগণের কাছে জবাবদিহির অনুভূতি না থাকায় ক্ষমতাশীনরা নিজেদের পকেট ভারীর করার কাজে বেশি মত্ত। আমরা বাংলাদেশের মেহনতি শ্রমিক সমাজের পক্ষ থেকে ২০২১-২২ অর্থ বছরের জন্য প্রস্তাবিত বাজেট প্রত্যাখান করলাম।

শামসুল ইসলাম সরকারকে উদ্দেশ্য করে বলেন, দেশের শ্রমজীবী মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন না হলে কোনো উন্নয়ন দেশের কাজে আসবে না। দল-মত নির্বিশেষে বিজ্ঞ অর্থনীতিবিদদের নিয়ে নতুন বাজেট প্রণয়ন করুন। অন্যথায় শ্রমজীবী মানুষের অধিকার ও জীবন জীবিকা রক্ষার জন্য আমরা শ্রমজীবী মানুষদের সাথে নিয়ে আগামী দিনে রাজপথে নেমে আসতে বাধ্য হবো।

বিজ্ঞপ্তি

সংবাদটি শেয়ার করুন

সংবাদটি পড়া হয়েছে 77 বার

যোগাযোগ

অফিসঃ-

উদ্যম-৬, লামাবাজার, সিলেট,

ফোনঃ 01727765557

voiceofsylhet19@gmail.com

সামাজিক যোগাযোগ

সম্পাদক মন্ডলি

ভয়েস অফ সিলেট ডটকম কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। অনুমতি ছাড়া এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি ও বিষয়বস্তু অন্য কোথাও প্রকাশ করা বেআইনি।

Design & Developed By : amdads.website