Voice of SYLHET | logo

২৬শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ | ১০ই আগস্ট, ২০২২ ইং

মশার ঔষুধঃ এলজিডি সচিবকে ডেকেছে হাইকোর্ট।

প্রকাশিত : August 01, 2019, 08:19

মশার ঔষুধঃ এলজিডি সচিবকে ডেকেছে হাইকোর্ট।

ভয়েস অব সিলেটঃ সারা দেশে ডেঙ্গু ছড়িয়ে পড়ার প্রেক্ষাপটে মশা মারার কার্যকর ওষুধ আনার বিষয়ে জানতে স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিব হেলালুদ্দীন আহমদকে দুপুর দুইটার মধ্যে হাজির হতে বলেছে হাইকোর্ট।

বিচারপতি তারিক-উল হাকিম ও বিচারপতি মো. সোহরাওয়ার্দীর সমন্বয়ে গঠিত দ্বৈত বেঞ্চে দীর্ঘ শুনানি শেষে হেলালুদ্দীন আহমদকে আদালতে হাজির হতে এই নির্দেশ দেওয়া হয়।

ঢাকায় এডিস মশাবাহিত রোগ ডেঙ্গুজ্বরে প্রকোপ বাড়তে শুরু করে গত জুন মাস থেকে। জুলাইয়ের শেষে এসে তা ছড়িয়ে পড়ছে দেশের প্রায় সব জেলায়।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, বুধবার পর্যন্ত দেশে ডেঙ্গু আক্রান্তের সংখ্যা ১৭ হাজার ১৮৩ জন, যাদের মধ্যে ১৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। তবে সংবাদপত্রে আসা খবরে ডেঙ্গুতে মৃত্যুর সংখ্যা এ বছর অর্ধশত ছাড়িয়েছে।

এডিস মশার প্রজননস্থানগুলো ধ্বংসে সফলতা না এলে এ রোগের প্রকোপ আরও বাড়তে পারে বলে সতর্ক করেছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

এ বছর ডেঙ্গুর প্রকোপের জন্য সিটি করপোরেশনের মশা নিধন কার্যক্রমে শিথিলতার অভিযোগ ওঠে। পাশাপাশি সিটি করপোরেশন মশা মারতে যে ওষুধ দিচ্ছে তা কার্যকর নয় বলে আইসিডিডিআর,বির গবেষণায় উঠে আসে।

বিষয়টি নিয়ে আলোচনার মধ্যে মশা নিধনে কার্যকর ওষুধ আনতে কত দিন লাগবে, তা গত ২৫ জুলাই জানতে চেয়েছিল হাই কোর্ট। তখন সময় নিয়ে এদিনও সে বিষয়ে স্পষ্ট কিছু বলতে পারেনি সিটি করপোরেশন ও রাষ্ট্রপক্ষ।

আদালত গত মঙ্গলবার এক আদেশে মশা মারার যথাযথ ওষুধ আনতে কত সময় লাগবে, তা বৃহস্পতিবারের দুপুরের মধ্যে জানাতে নির্দেশ দেয়। দুই সিটি করপোরেশন ও রাষ্ট্রপক্ষকে সুনির্দিষ্টভাবে তা হলফনামা আকারে জানাতে বলা হয়।

এর পরিপ্রেক্ষিতে বৃহস্পতিবার আদালতে দুই সিটি কর্পোরেশনের পক্ষ থেকে জানানো হয়, মশার ওষুধ আনার দায়িত্ব সরকারের। ছিটানোর দায়িত্ব সিটি করপোরেশনের।

সংবাদটি শেয়ার করুন

সংবাদটি পড়া হয়েছে 906 বার

যোগাযোগ

অফিসঃ-

উদ্যম-৬, লামাবাজার, সিলেট,

ফোনঃ 01727765557

voiceofsylhet19@gmail.com

সামাজিক যোগাযোগ

সম্পাদক মন্ডলি

ভয়েস অফ সিলেট ডটকম কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। অনুমতি ছাড়া এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি ও বিষয়বস্তু অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।