Voice of SYLHET | logo

২০শে আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ | ৪ঠা জুলাই, ২০২২ ইং

মেয়র আরিফের বিরুদ্ধে জিডি, নগরজুড়ে আলোচনা-সমালোচনা

প্রকাশিত : October 12, 2019, 14:37

মেয়র আরিফের বিরুদ্ধে জিডি, নগরজুড়ে আলোচনা-সমালোচনা

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীর বিরুদ্ধে মো. এহছানুল হক তাহের নামে এক ব্যবসায়ীর থানায় জিডি দায়েরের পর নানা তর্ক-বিতর্ক চলছে। সেই জিডি ঘিরে আছে আলোচনা-সমালোচনাও।

মেয়র আরিফ হুমকি দিয়েছেন এমনটা উল্লেখ করে সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের কোতোয়ালি থানায় জিডি (নং-৫৪৫) করেন ওই ব্যবসায়ী তাহের। গত সিটি নির্বাচনে তাহের স্বতস্ত্র মেয়র প্রার্থী ছিলেন।
মঙ্গলবার রাতে ওই জিডি করা হয়। এই জিডিকে কেন্দ্র করে এখন সিলেটে তোলপাড় হচ্ছে। নানা তর্ক-বিতর্কও হচ্ছে এই জিডিকে ঘিরেই। সিসিক মেয়র আরিফ তাঁর বিরুদ্ধে জিডি দায়ের করায় বিষয়টিকে ‘ষড়যন্ত্র’ হিসেবে দেখছেন।আর জিডি দায়েরকারী তাহের বলছেন, কেবল নিরাপত্তার স্বার্থেই তিনি এ জিডি করেছেন। আবার সুশীল সমাজের প্রতিরিধিরা বলছেন, সাধারণ কোনো মানুষ থানায় জিডি করতে গেলে একটু সময় লাগে, বিড়ম্ভনায় পড়েন। কিন্তু একজন জনপ্রতিনিধি সিসিকের মেয়রের বিরুদ্ধে জিডি দায়েরের বিষয়টি ‘হতবাক’ করার মতো। তাই এই জিডিই এখন রীতিমিত আলোচনার জন্ম দিয়েছে নগরজুড়ে। আলোচনা-সমালোচনার রসদ জুগিয়েছে ওই জিডি।

জিডি দায়েরকারী নগরীর জল্লারপারের হক মঞ্জিলের ফজলুর হক তানু মিয়ার ছেলে এহছানুল হক তাহের বলেন, গত মঙ্গলবার আনুমানিক বিকেল ৫টায় জিন্দাবাজারে লতিফ সেন্টারের সামনে ডান পার্শ্বে সিসিক মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীর সঙ্গে ড্রেন খননের লক্ষে জায়গা নির্ধারণের বিষয়ে আলাপকালে পরিকল্পনা প্রণয়নের কপি চাওয়ায় তিনি (মেয়র) তার ওপর ক্ষিপ্ত হন, উত্তেজিত হয়ে ওঠেন। তাই নিরাপত্তার স্বার্থেই তাহের থানায় জিডি করেন।

এ বিষয়ে সিসিক মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী বলেন, তাহের আমার কাছে জায়গা নির্ধারণের বিষয়ে ঘটনাস্থলেই পরিকল্পনা প্রণয়নের কপি দেখতে চান। তখন আমি তাকে অফিসে গিয়ে পরিকল্পনা প্রণয়নের কপি দেখার পরামর্শ দেই। কিন্তু তিনি উচ্চবাচ্য শুরু করেন। আর তাঁর (মেয়র) বিরুদ্ধে থানায় জিডি করার বিষয়টি ‘ষড়যন্ত্রের’ গন্ধ পাচ্ছেন। স্বার্থন্বেষী মহলের ইন্দনে তাঁর বিরুদ্ধে থানায় জিডি করা হয়েছে এমন অভিযোগও সিসিক মেয়রের।

সিসিক মেয়রের বিরুদ্ধে ব্যবসায়ীর থানায় জিডি প্রসঙ্গে সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) সিলেটের সভাপতি ফারুক মাহমুদ চৌধুরী বলেন, মেয়র নগরীর বিভিন্ন রাস্তা সম্প্রসারণ করে বেশ প্রশংসাই কুড়িয়েছেন। তাঁর (মেয়র) আহবানে অনেকে স্বপ্রণোদিতভাবে নিজের মূল্যবান জায়গাও ছেড়ে দিয়েছেন। শুনেছি গত মঙ্গলবার জায়গা নির্ধারণের বিষয়ে ঘটনাস্থলেই পরিকল্পনা প্রণয়নের কপি দেখতে চান এক ব্যবসায়ী।
তিনি বলেন, মেয়র তো ফাইল নিয়ে রাস্তায় ঘুরেন না। একটা নিয়ম আছে। তাঁর (মেয়র) অফিসে গিয়ে নিয়ম মেনে তা দেখতে পারেন। তথ্য অধিকার আইনেও তা বলা আছে। মেয়রের বিরুদ্ধে ব্যবসায়ী তাহেরের জিডি প্রসঙ্গে সুজন সভাপতি ফারুক মাহমুদ চৌধুরী বলেন, সাধারণ কোনো লোকের বিরুদ্ধে থানায় জিডি করতে গেলে সময়ক্ষেপন হয়। কিন্তু মেয়রের বিরুদ্ধে জিডি দায়েরের বিষয়টি তিনি ‘হতবম্ভ’ বলে মন্তব্য করেন। এদিকে নগরীর অলি-গলির রাস্তা বর্ধিত করা হচ্ছে। দিন-রাত চলছে সেই বর্ধিতের কাজ। রাস্তার কাজের সঙ্গে তাল মিলিয়ে ঝুলন্ত বিদ্যুতের তারও নেয়া হচ্ছে মাটির নিচ দিয়ে। এগারো কেভির লাইন মাটির নিচ দিয়ে নেয়ার ফলে নগরীতে থাকবে না ঝুলন্ত বিদ্যুতের তার। চলমান কাজ যখন এগুচ্ছে তখন ঘটলো এক বিপত্তি।

গত মঙ্গলবার বিকেল ৫টায় জিন্দাবাজারের রাস্তা বর্ধিত করার কাজ পরিদর্শনে আসেন সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী। এসময় লতিফ সেন্টারের সামনে জিন্দাবাজার পয়েন্টের আশাপাশের দোকান মালিক ও ব্যাবসায়ীরা উপস্থিত হন। মেয়র আরিফ উপস্থিত লোকজনের সামনে চলমান কাজ সম্পর্কে অবহিত করেন।
এসময় মেয়র বলেন, সরকারি নিয়মানুযায়ী এই রাস্তা ৮০ ফিট করার কথা। কিন্তু রাস্তা বড় করা হচ্ছে ৬০ ফিট। এসময় বাঁধ সাধেন জিন্দাবাজারের ব্যাবসায়ী ও বিগত সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে
মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিকারী এহছানুল হক তাহের। তাহের মেয়র আরিফের কাছে ঘটনাস্থলেই পরিকল্পনা প্রণয়নের কপি দেখতে চান। তাহেরের কথার একপর্যায়ে মেয়র আরিফ ক্ষিপ্ত হয়ে বলেন, দোকান ভাঙ্গবো, পারলে আটকাও’। এ নিয়ে মেয়র আরিফ-তাহেরের মধ্যে কথাকাটাকাটি হয়। সর্বশেষ ওই দিন রাতেই নিজের নিরাপত্তা চেয়ে সিলেট মহানগর পুলিশের কোতোয়ালি থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করেন তাহের। তাহেরের এই জিডি ঘিরে নগরজুড়ে এখন চলছে নানা আলোচনা-সমালোচনা।

জিডি প্রসঙ্গে ব্যবসায়ী এহছানুল হক তাহের বলেন, মেয়র সেদিন উত্তেজিত হয়ে ওঠেন। সেই আচরণ আমাকে হতবাক করেছে। তিনি বলেন, আমি সেদিন ভয়ে ছিলাম। তাই নিরাপত্তা চেয়ে জিডি করেছি

সংবাদটি শেয়ার করুন

সংবাদটি পড়া হয়েছে 385 বার

যোগাযোগ

অফিসঃ-

উদ্যম-৬, লামাবাজার, সিলেট,

ফোনঃ 01727765557

voiceofsylhet19@gmail.com

সামাজিক যোগাযোগ

সম্পাদক মন্ডলি

ভয়েস অফ সিলেট ডটকম কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। অনুমতি ছাড়া এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি ও বিষয়বস্তু অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।