Voice of SYLHET | logo

৩১শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ | ১৫ই আগস্ট, ২০২২ ইং

বিশ্বকাপ ফাইনাল সমাচার

প্রকাশিত : July 13, 2019, 13:45

বিশ্বকাপ ফাইনাল সমাচার

শেখ রিদওয়ান হোসাইনঃ
বহু প্রতীক্ষিত ফাইনালের বাকি আর মাত্র কয়েকটি ঘণ্টা। ক্রিকেটপাড়ায় তাই উত্তেজনার পারদ সময়ে সময়ে বাড়ছে। ফাইনালে মুখোমুখি এখনো বিশ্বকাপ ট্রফি না ছোঁয়া দুইটি দল। একদিকে ‘ওয়াইজ ম্যান’ খ্যাত উইলিয়ামসনের নিউজিল্যান্ড, অন্যদিনে ‘আইরিশ ম্যান’ ইয়ান মরগানের অপ্রতিরোধ্য ইংল্যান্ড।

ইংল্যান্ড, এবারের বিশ্বকাপের আয়োজক দল। ঘরের মাঠ,দর্শক,চিরপরিচিত কন্ডিশন নিয়ে বেশ স্বাচ্ছন্দ্যেই বিশ্বকাপের ফাইনালে উঠলো তারা। স্বাগতিক দেশ হিসেবে যে চাপ ছিলো তাদের উপর সেটাও বেশ ভালোভাবেই সামলেছে। যদিও গ্রুপ স্টেজে কিছু ধাক্কা খায় নিয়মিত ওপেনার জেসন রয়ের অনুপস্থিতিতে। তারা সেমিফাইনালে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ও পাঁচ বারের বিশ্বকাপ জয়ী অস্ট্রেলিয়াকে রীতিমতো উড়িয়ে দিয়েই ট্রফিতে একহাত রেখে ফেলে।

দেখে নেওয়া যাক ইংল্যান্ড টিমের এবারের বিশ্বকাপ-
এ পর্যন্ত ৭টি ম্যাচ জয় ও ৩ টি হারের মুখ দেখেছে টিম ইংল্যান্ড। ঘরের মাঠ,কন্ডিশন আর দর্শকদের নিয়েই শুধু এগিয়ে নয় ইংল্যান্ড! ব্যাটিং ডেপথ,বোলিং ভেরিয়েশন,দারুণ ফিল্ডিং, ক্যাপ্টন্সি,স্কোয়াড বিশ্লেষণ করে দল সাজানো এবং প্লেয়ারদের ধারাবাহিক পারফরম্যান্সে ফাইনালে ইংল্যান্ড কাগজে-কলমে স্পষ্টতই এগিয়ে।ইংল্যান্ডের সবচেয়ে বড় স্ট্রং জোন টপ অর্ডারের দূর্দান্ত পারফর্ম। তাদের টপ অর্ডারের ৩ জনই রয়েছেন এবারের বিশ্বকাপের সেরা দশ রান সংগ্রাহকের তালিকায়। তাদের ওপেনিং জুটিটা তাদের বড় স্কোর করার প্লাটফর্ম দিয়ে যায়। জেসন রয় ইঞ্জুরি ফেরার পর থেকে জনি বেরিয়েস্টোকে নিয়ে দারুণ সব সূচনা এনে দিয়েছেন। ইন্ডিয়ার সাথে ওপেনিংয়ে রয়-জনি জুটি ১৬০ রান করে। পরবর্তী ম্যাচে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ওপেনিং জুটিতে আসে ১২৩ এবং শেষ ম্যাচ অর্থাৎ সেমিফাইনাল ম্যাচটিতে আসে ১২৪ রানের জুটি। সুতরাং বোঝাই যাচ্ছে ওপেনিংয়ে কি পরিমাণ দারুণ এই মানিকজোড়। ওপেনিং ছাড়াও টপ অর্ডারে জো রুটো রয়েছেন সেরা ফর্মে। এবারের আসরে ইতিমধ্যে তার ব্যাট থেকে এসেছে ৫৪৯টি রান।

বোলিংয়ে জোফরা আর্চার,ক্রিস ওকস ও মার্ক উডের তান্ডবে প্রতিপক্ষকে হিমশিম খেতে হয়।দলে আরোও রয়েছে প্লানকাট,আদিল রশীদ ও স্টোকসের মতো কার্যকরী বোলার। জোফরা আর্চার ও মার্ক উড এবারের বিশ্বকাপে উইকেট নিয়েছেন যথাক্রমে ১৯ এবং ১৭ টি৷ নতুন বল হাতে উইকেট নিতে জুড়ি নেই ক্রিস উকসেরও। ব্যাক-থ্রু আনতে যেনো সদা প্রস্তুত রশিদ,প্লানকাট ও স্টোকসরা।
ফাইনালে ইংল্যান্ডের একটি মাত্রই চিন্তা। টপ অর্ডার কলাপ্স করলে মিডল অর্ডার আর তাদের ব্যাটিং ডেপথ সেটা পুষিয়ে দিতে পারবে তো?

 

এবার আসা যাক নিউজিল্যান্ডের দিকে-
বিশ্বকাপে এখন পর্যন্ত ৬ টি জয়, ৩ টি হার ও ১ টি পরিত্যক্ত ম্যাচের দেখা পেয়েছে নিউজিল্যান্ড। নিউজিল্যান্ডের ম্যাচ জেতার মূল মন্ত্রই যেনো হলো ক্যাপ্টেন কেন উইলিয়ামসন। ঠান্ডা মাথার দারুণ চতুর এ ক্যাপ্টেন দলকে নিজের সর্বোচ্চটা দিয়েই তুলে এনেছেন ফাইনালে৷ দল যখনই বিপদে পড়ে ব্যাট হাতে সেই বিপদ একাই সামাল দেন এ ক্যাপ্টেন। বিশ্বকাপে ইতিমধ্যে করে ফেলেছেন ৫৪৮ রান। তার কার্যকরী ইনিংস বার বারই নিউজিল্যান্ডকে দিয়েছে জয়ের দেখা। তবে বল হাতে তাদের ট্রেন্ট বোল্ট, ফার্গুসন ও ম্যাট হেনরির ভুমিকা অনবদ্য। সবকটি ম্যাচ বিশ্লেষণ করলে তাদের ব্যাটিং এর চেয়ে যোজন যোজন এগিয়ে তাদের বোলিং। লাকি ফার্গুসন ও ট্রেন্ট বোল্ট ইতিমধ্যে উইকেট নিয়েছেন যথাক্রমে ১৮ এবং ১৭টি।

দলকে সেরা সঙ্গই দিচ্ছেন দুই অলরাউন্ডার জিমি নিশাম ও গ্রেন্ড হোম। তবে তাদের ওপেনিং জুটিটা পুরো আসর জুড়েই ব্যর্থ। ব্যাটে রান নেই নিয়মিত ওপেনার গাপটিল আর কলিন মুনরোর। আসরের শেষ ম্যাচে তাই জিততে হলে অনেকটাই বেগ পেতে হবে নিউজিল্যান্ডকে। তবে মাঠে কেন উইলিয়ামসন থাকলে কোনো কিছুই যে অসম্ভব নয়।
বিশ্বকাপের শেষ হাসি কে হাসবে দেখতে হলে অপেক্ষায় থাকতে হবে আর মাত্র ১ টা দিন। যেই দলের হাতেই শিরোপা উঠুক,সেই দল হবে নতুন বিশ্বকাপ জয়ী দল।

সংবাদটি শেয়ার করুন

সংবাদটি পড়া হয়েছে 850 বার

যোগাযোগ

অফিসঃ-

উদ্যম-৬, লামাবাজার, সিলেট,

ফোনঃ 01727765557

voiceofsylhet19@gmail.com

সামাজিক যোগাযোগ

সম্পাদক মন্ডলি

ভয়েস অফ সিলেট ডটকম কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। অনুমতি ছাড়া এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি ও বিষয়বস্তু অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।