Voice of SYLHET | logo

৩রা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ | ১৮ই আগস্ট, ২০২২ ইং

ময়লা ফেলে এরপর পরিচ্ছন্নতা অভিযানে ঢাবি উপাচার্য

প্রকাশিত : August 05, 2019, 18:50

ময়লা ফেলে এরপর পরিচ্ছন্নতা অভিযানে ঢাবি উপাচার্য

ভয়েস অব সিলেটঃ
বিশ্ববিদ্যালয়ে পরিচ্ছন্ন স্থানে ময়লা ফেলে রাখার পর সেখানে গিয়ে তার পরিষ্কার করে উপাচার্য অধ্যাপক আখতারুজ্জামানের ‘ক্লিন ক্যাম্পাস উইক’ উদ্বোধন নিয়ে চলছে তুমুল আলোচনা।

ডেঙ্গু জ্বরের প্রকোপ দেখা দেওয়ায় মশা দমনে সব স্থান পরিচ্ছন্ন রাখতে আহ্বান জানানো হচ্ছে।
এর মধ্যেই সোমবার টিএসসি সড়ক দ্বীপ এবং রাজু ভাস্কর্যের সামনের রাস্তায় উপাচার্য ‘ক্লিন ক্যাম্পাস উইক’ উদ্বোধন করেন।
এই অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ সামাদ, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. মো কামাল উদ্দীন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. এ এস এম মাকসুদ কামাল, ডাকসুর এজিএস সাদ্দাম হোসেন, সমাজসেবা সম্পাদক আখতার হোসেন, সদস্য তিলোত্তমা শিকদারসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক কর্মকর্তা, কর্মচারী ও ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা।

বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী, স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শতবর্ষপূর্তি উদযাপন উপলক্ষে এখন থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রতি মাসের প্রথম সপ্তাহকে ‘ক্লিন ক্যাম্পাস উইক’ হিসেবে পালন করার ঘোষণা দেন উপাচার্য।
তবে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা বলছেন, রাজু ভাস্কর্যের সামনের এই রাস্তাটা পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নই থাকে। উপাচার্য সকালে এই কর্মসূচি উদ্বোধন করার আগে কয়েকজন পরিচ্ছন্নতাকর্মী এসে ভ্যানে করে সেখানে ময়লা ফেলে যায়।
প্রত্যক্ষদর্শী একজন শিক্ষার্থী বলেন, “ভিসি স্যারের প্রোগ্রামের আগে কয়েকজন পরিচ্ছন্নতাকর্মী ভ্যানে করে পলিথিন, প্লাস্টিকের চায়ের কাপ, ডাবের খোসাসহ বিভিন্ন ময়লা জিনিস ফেলে দিয়ে যায়। পরে ভিসি স্যার এসে কিছু ময়লা তুলে ফটোশেসন করে চলে যান।”
এই ঘটনার ভিডিও ক্লিপ ফেইসবুকে ছড়িয়ে পড়লে এর সমালোচনা আসতে থাকে।

ঘটনাটি নিয়ে অনুষ্ঠানেই উপাচার্য প্রশ্নের মুখে পড়েন।
এক সাংবাদিক প্রশ্ন করলে অধ্যাপক আখতারুজ্জামান বলেন, “কারা ময়লা করছে, তুমি তাদেরকে জিজ্ঞেস কর- কেন ময়লা করলা? তাদেরকে জিজ্ঞেস কর কোনো জায়গাই ময়লা করা যাবে না এবং আমরা যেখানে ময়লা পাব, সেই ময়লা পরিষ্কার করব।”
একজন পরিচ্ছন্নতাকর্মী পরে সাংবাদিকদের প্রশ্নে বলেন, “স্যারদের ময়লা তোলার সুবিধার জন্য এসব ময়লা এখানে আনা হয়েছে। স্যাররা চলে গেলে এগুলো আমরাই পরিষ্কার করব।”
পুরো বিষয়টি নিয়ে পরে যোগাযোগ করা হলে উপাচার্য আখতারুজ্জামান বলেন, “না, ওরকম কোন বিষয় না।
“আমি তো একটা বিষয়ই জানি যে, আমরা ওখানে গেলাম, উদ্বোধন করলাম এবং পরিষ্কার করলাম। অন্য বিষয়গুলো তো আমার জানার কথা নয়, আমি তো জানি না এগুলো।”
মশা দমনে নানা স্থানেই এরকম পরিচ্ছন্নতা অভিযান হচ্ছে; তবে এগুলোর অনেকগুলোই লোকদেখানো বলে অভিযোগ উঠেছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

সংবাদটি পড়া হয়েছে 820 বার

যোগাযোগ

অফিসঃ-

উদ্যম-৬, লামাবাজার, সিলেট,

ফোনঃ 01727765557

voiceofsylhet19@gmail.com

সামাজিক যোগাযোগ

সম্পাদক মন্ডলি

ভয়েস অফ সিলেট ডটকম কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। অনুমতি ছাড়া এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি ও বিষয়বস্তু অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।