বার্সেলোনার বর্তমান সভাপতি হোসেপ মারিয়া বার্তোমেউর প্রতি দীর্ঘদিনের ক্ষোভ থেকেই দলবদলের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন লিওনেল মেসি। সভাপতি ছাড়াও বার্সোলোনার বর্তমান বোর্ডের বিরুদ্ধে ক্ষোভ রয়েছে আর্জেন্টাইন সুপারস্টারের।

ক্লাবটির সভাপতি চাচ্ছেন, বুড়োদের ছেঁটে ফেলে নতুন দল তৈরি করতে, যেখানে মেসিকেও রাখছেন তিনি। এ কারণেই বার্তোমেউ-মেসির মধ্যকার সম্পর্কের অবনতি হয়েছে।

এছাড়া বার্তোমেউয়ের পক্ষ নিয়ে বেশ কয়েকটি কাতালান প্রচারমাধ্যম শিরোনাম করেছে যে, বার্সেলোনার সাম্প্রতিক ব্যর্থতার জন্য মেসির আচরণগত সমস্যাই দায়ী। এমন খবরে বেশি কষ্ট পেয়েছেন মেসি।

গত বুধবার ব্যুরোফ্যাক্স পাঠিয়ে বার্সেলোনায় আর না খেলার সিদ্ধান্ত জানান মেসি। তারপর থেকেই বিশ্বে আলোড়ন সৃষ্টি হয়। স্পেনের বার্সেলোনা শহরে অবস্থিত ন্যু-ক্যাম্প স্টেডিয়ামের সামনে বিক্ষোভ শুরু হয়। মেসিভক্তরা বার্সেলোনা সভাপতির পদত্যাগ দাবি করেন। বার্সেলোনা শহরের মেয়রও মেসিকে রেখে দেয়ার পরামর্শ দিয়েছেন।

সভাপতিত্ব টিকে রাখতেই লিওনেল মেসিকে রেখে দেয়ার লোক দেখানো চেষ্টা করে যাচ্ছেন বার্তোমেউ।

কাতালুনিয়া রেডিওর খবর- শান্তি স্থাপনে মেসির সঙ্গে জরুরি বৈঠক করতে চান বার্সা সভাপতি। কিন্তু স্প্যানিশ ক্রীড়া দৈনিক মার্কা কাল জানিয়েছে, বার্তোমেউর সঙ্গে দেখা করতে রাজি নন মেসি। দলবদলের সিদ্ধান্তে তিনি অনড়। বার্তোমেউ এখন পদত্যাগ করলেও তার সিদ্ধান্ত বদলাবে না।

তবে দলবদলের প্রক্রিয়া শেষ না হওয়া পর্যন্ত কাতালানদের সঙ্গে অনুশীলন চালিয়ে যাবেন মেসি। রোববার করোনা পরীক্ষার পর সোমবার নতুন মৌসুমের প্রস্তুতি শুরু করবে বার্সেলোনা। ক্লাবের নতুন কোচ রোনাল্ড কোম্যানকে পছন্দ না হলেও তার অধীনে অনুশীলন করতে আপত্তি নেই মেসির। চুক্তি বাতিলের আগ পর্যন্ত ক্লাবের প্রতি নিজের আনুগত্য প্রশ্নবিদ্ধ করতে চান না বার্সা অধিনায়ক।

এদিকে বার্সার নতুন ক্রীড়া পরিচালক রোমান প্লানেস এখনও আশার গল্প শুনিয়ে যাচ্ছেন, আমরা ভাবছি না যে, মেসি চলে যাবে। বার্সেলোনার বিনির্মাণে মেসিই ভবিষ্যৎ। বিশ্বের সেরা খেলোয়াড়কে নিয়েই আমরা আরেকটি জয়ী দল সাজাতে চাই।