Voice of SYLHET | logo

১৬ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | ১লা অক্টোবর, ২০২০ ইং

ঢাবির দুই শিক্ষার্থীকে হল ছাড়া করল ছাত্রলীগ

প্রকাশিত : ডিসেম্বর ০৯, ২০১৯, ২১:৩১

ঢাবির দুই শিক্ষার্থীকে হল ছাড়া করল ছাত্রলীগ

ছাত্রদল করার অভিযোগ তুলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্যার এ এফ রহমান হল থেকে দুই শিক্ষার্থীকে বের করে দিয়েছে ছাত্রলীগ। হল ছাড়া করার আগে তাদের মারধর ও মানিব্যাগ থেকে টাকা রেখে দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেলেও তা অস্বীকার করেছে হল ছাত্রলীগ।

৮ ডিসেম্বর, ভোররাতে এই ঘটনা ঘটে বলে জানা গেছে।
হল শাখা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আফসার হাসান রানার নেতৃত্বে ওই দুই শিক্ষার্থীকে হল থেকে বের করে দেওয়া হয়েছে বলে ভুক্তভোগীদের অভিযোগ। আফসার ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয়ের (ভারপ্রাপ্ত) অনুসারী।

ছাত্রলীগের মারধরের শিকার ওই দুই শিক্ষার্থীর নাম রাকিবুল হাসান (রাকিব) ও সুমন। এদের মধ্যে রাকিব দ্বিতীয় বর্ষে ও সুমন প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী। তারা দুজনেই বিশ্ববিদ্যালয়ের মনোবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী।

জানা গেছে, সুমন হলের ১১১ নম্বর ও রাকিব ১১৩ নম্বর কক্ষে থাকতেন। সুমন তাঁর কক্ষে ঘুমিয়েছিলেন। তাকে ঘুম থেকে তুলে হলের তিন তলায় ছাত্রলীগ নেতা আফসারের রুমে ডেকে নিয়ে যায় অপর ছাত্রলীগ নেতা জিসান। সেখানে প্রথমদফায় মারধর করার পর তাকে হলের গেস্টরুম ও হল ছাত্র সংসদের কক্ষে নিয়ে যাওয়া হয়।

একই কায়দায় রাকিবকেও ঘুম রুম থেকে ডেকে নিয়ে যাওয়া হয়। হল শাখা ছাত্রলীগের লাভলু, জুয়েল ও জহির তাকে জিজ্ঞাসাবাদ ও ভয় ভীতি দেখিয়েছেন বলে জানা গেছে।

ঘটনার শিকার রাকিবুল হাসান জানিয়েছেন ফেসবুকে লেখালেখি করার কারণে তার প্রতি বিরাগভাজন হয়েছে ছাত্রলীগ। তিনি বলেন, আমকে ঘুম তুলে মারধর করেছে। পরে হল থেকে চলে যেতে বলে। আমি ফেসবুকে বিভিন্ন সময় লেখালেখি করি। নিরপেক্ষ থেকে লেখার চেষ্টা করি। মাঝে মাঝে তা সরকার বা ক্ষমতাসীন দলের বিপক্ষে চলে যায়।

মারধরের শিকার অপর শিক্ষার্থী সুমনের মানিব্যাগ থেকে ছাত্রলীগ নেতা আফসার টাকা নিয়ে নিয়েছেন বলে ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী অভিযোগ করেছেন। তিনি বলেন, আমার মানিব্যাগে সাড়ে তিন হাজার টাকা ছিল। আফসার ভাই, আমার মানিব্যাগ সার্জ করার নামে তিন হাজার টাকা নিয়ে নেন।

বৈধ শিক্ষার্থী হওয়া সত্ত্বেও হল থেকে নির্যাতন করে বের দেওয়ায় বর্ণনা দিয়ে তিনি আক্ষেপ করে বলেন,  আমি স্যার এ এফ আর হলের বৈধ শিক্ষার্থী। আমি বৈধভাবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হয়েছে। আমাকে এফ আর হলে সিট দেওয়া হয়েছে। তারপরও আমি কেন হলে থাকতে পারবো না? হল কী কোনো ছাত্র সংগঠনের?

তবে মারধর করার অভিযোগ পুরোপুরি অস্বীকার করেছেন ছাত্রলীগ নেতা আফসার হোসেন রানা। একইসঙ্গে টাকা আত্মসাৎ করার অভিযোগের বিষয়ে তিনি বলেন, কেন ওদের মানিব্যাগ খোঁজ করতে যাবো? আমরা কোনো টাকা নেইনি।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক কে এম গোলাম রাব্বানী ঘটনার বিষয়ে অবহিত হয়েছেন জানিয়ে বলেন, এটা হলের ভেতরকার ঘটনা। এটা হল প্রশাসন দেখবে। তারা যদি কোনো সাহায্য চায়, তাহলে আমরা করবো।

হলের প্রধ্যাক্ষ অধ্যাপক ড. কে এম সাইফুল ইসলাম খান  বলেন, আজকে আমি সমাবর্তন নিয়ে ব্যস্ত ছিলাম। হাউস টিউটির দিয়ে আমি ঘটনার খোঁজ নিয়েছি। আজ রাত ১০টার সময় সময় সবাইকে নিয়ে মিটিং ডেকেছি। হলে ছাত্ররা বৈধভাবে থাকে, কেউ সন্ত্রাসী কার্যক্রম করে অন্য কোন ছাত্রকে বের করে দিতে পারে না। এ বিষয়ে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

সংবাদটি পড়া হয়েছে 130 বার

যোগাযোগ

অফিসঃ-

উদ্যম-৬, লামাবাজার, সিলেট,

ফোনঃ 01727765557

voiceofsylhet19@gmail.com

সামাজিক যোগাযোগ

সম্পাদক মন্ডলি

ভয়েস অফ সিলেট ডটকম কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। অনুমতি ছাড়া এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি ও বিষয়বস্তু অন্য কোথাও প্রকাশ করা বেআইনি।

Design & Developed By : amdads.website